• বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪০ পূর্বাহ্ন
Headline
চরম্বায় বিষপানে গৃহবধূর আত্মহত্যা জয়নুল আবেদীন জনু চেয়ারম্যানকে আবারো চেয়ারম্যান হিসেবে চাই চুনতির জনগণ ব্যাংকিং সেবা সম্পর্কে জানেন না টেকনাফের নারী উদ্যোক্তারা পুটিবিলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আসতে পারে চমক! পেকুয়ার ৬ ইউপিতে নৌকার মনোনয়ন পেলেন যারা মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনায় তিন আসামির ২ দিনের রিমান্ড চকরিয়ায় পুজামন্ডপ পাহারা দেয়া যুবলীগ নেতাসহ মামলার আসামী ৩৬ জন টেকনাফের যুবকরা মাদক ও বাল্য বিবাহের ঝুঁকিতেঃ দরকার সম্মিলিত প্রচেষ্টা বালুখালীতে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ১৪৪ পরিবারকে ইপসার অর্থ সহায়তা ও প্রয়োজনীয় সামগ্রী বিতরণ লোহাগাড়ায় পিতার সাথে অভিমান করে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীর আত্মহত্যা

মজুত লবণে আরো ৫ মাস চলবে, দরকার হবে না আমদানির

Reporter Name / ৩৫ Time View
Update : শনিবার, ৯ অক্টোবর, ২০২১

ইমাম খাইর, কক্সবাজার:
দেশীয় লবণের কোন ঘাটতি নেই। মিল-কারখানা ও পাইপ লাইন মিলে যা মজুত আছে তা দিয়ে আরো অন্তত ৫ মাস চলবে। এক মাস পরেই নতুন লবণ মৌসুম। তবু সরকারকে ভুল তথ্য দিয়ে বিদেশি লবণ আমদানির চক্রান্ত করছে রক্তচোষা সিন্ডিকেট। তাদের কারণে দেশীয় লবণশিল্প মাথা উচু করে দাঁড়াতে পারছে না। বারবার মার খাচ্ছে দেশের লবণ। ন্যায্য মজুরি বঞ্চিত হচ্ছে প্রান্তিক লবণ চাষীরা।

বিসিক কক্সবাজার অফিস সুত্র বলছে, গত ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মাঠ পর্যায়ে সাড়ে ৪ লক্ষ এবং মিল-কারখানায় দেড় লক্ষ মিলে প্রায় ৬ লক্ষ মে.টন লবণ মজুত আছে। পাইপ লাইনে (বিভিন্ন খুচরা মজুতদার) জমা রয়েছে আরো অন্তত এক লক্ষ মে.টন।

আগামী তিন মাসের চাহিদা অনুযায়ী লবণ দরকার হবে সাড়ে ৫ লক্ষ মে. টন লবণ। বিপরীতে মজুত আছে ৭ লক্ষ মে.টন। সুতরাং দেশে লবণের কোন সংকট নেই। আমদানির প্রয়োজন পড়বে না।

অভিযোগ ওঠেছে, ইতোমধ্যে আমদানিকারক পুরনো চক্রটি আবারো মাঠে নেমেছে। তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে ভুঁইফোড় কিছু লবণ মিল মালিক। সবাই মিলে শক্ত সিন্ডিকেট বেঁধেছে। প্রয়োজনে তারা জায়গা মতো ‘বিনিয়োগ’ করবে। বিদেশি লবণ আমদানি করতে নাছুড় তারা।

নির্ভরযোগ্য সুত্র জানিয়েছে, ইতোমধ্যে সরকারকে ২ লক্ষ মে.টন লবণ আমদানির প্রস্তাবনা পেশ করা হয়েছে। সেই প্রস্তাবনা কতটুকু যৌক্তিক তা অনুসন্ধানে মাঠ জরিপ করছে বিসিক। তাদের প্রতিবেদনের পরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে, এমনটি আভাস মিলেছে।

অনুসন্ধান মতে, মাঠ পর্যায়ে কেজিতে লবণের দাম ৫ টাকা। কিন্তু প্যাকেটজাত করে বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৩৫-৪০ টাকা পর্যন্ত। খুচরা মূল্যে রয়ে যাচ্ছে বিরাট ফারাক। দালাল-মধ্যস্বত্বভোগীদের পকেট ভারি হলেও বঞ্চিত হচ্ছে চাষীরা। এই মূহূর্তে সরকারের কঠোর হস্তক্ষেপই দেশের অতিগুরুত্বপূর্ণ এই খাতকে বাঁচাতে পারে।

এদিকে, দেশে উৎপাদিত লবণ চাহিদা মিটিয়ে উদ্বৃত্ত থাকার পরও অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের বিদেশি লবণ আমদানির ষড়যন্ত্র রুখতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছে কক্সবাজার লবণচাষী ও ব্যবসায়ী সংগ্রাম পরিষদ।

এ দাবিতে শনিবার (৯ অক্টোবর) বিকালে কক্সবাজার প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে তারা। সেখানে লিখিত বক্তব্যে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শহিদ উল্লাহ বলেন, দেশে উৎপাদিত লবণ যেখানে দেশের মানুষের চাহিদা মিটিয়ে এখনও ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চাহিদার চেয়েও বেশি লবণ মজুত রয়েছে, সেখানে লবণ মালিক সমিতি নামের একটি অকার্যকর সিন্ডিকেট আবারও সরকারকে ভুল তথ্য দিয়ে বিদেশি লবণ আমদানির পাঁয়তারা করছে। এই মুহূর্তে দেশীয় লবণশিল্প বিরোধী ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে।

তিনি বলেন, কক্সবাজার ও বাঁশখালীর কিছু অংশ নিয়ে প্রায় ৫৭,২৭০ একর জমিতে প্রায় ৫৫ হাজার লবণচাষী রয়েছেন। এছাড়াও লবণের উপর বিভিন্ন ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করেন আরও ৮০ শতাংশ মানুষ। ফলে দেশীয় লবণ শিল্প ধ্বংস হয়ে গেলে হাজার হাজার মানুষ বেকার হয়ে পড়বেন, যাদের অন্য কোন পেশা নেই।

বিদেশি লবণ আমদানির ষড়যন্ত্র রুখতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়ে কক্সবাজার লবণচাষী ও ব্যবসায়ী সংগ্রাম পরিষদের সংবাদ সম্মেলন।

ভুক্তভোগিরা জানিয়েছে, দেশীয় লবণ চাষীরা যখন আগামি মৌসুমের লবণ উৎপাদনের জন্য মাঠে নেমে পড়েছে, ঠিক ওই সময়ে একটি অসাধু চক্র আগামি মৌসুমে দেশে লবণের সংকট হতে পারে- এমন তালবাহানা তুলে সরকারের উচ্চ মহলে ও স্থানীয় প্রশাসনে ভুল তথ্য দিয়ে বিদেশী লবণ আমদানির ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।

বিদেশি লবণ আমদানির ষড়যন্ত্র রুখতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়ে কক্সবাজার লবণচাষী ও ব্যবসায়ী সংগ্রাম পরিষদের সংবাদ সম্মেলন।

বিগত দুই-তিন বছর যেখানে লবণ চাষীরা যেখানে ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না, সেখানে এই চক্রান্তকারি মুনাফালোভীদের ষড়যন্ত্র সফল হলে দেশীয় লবণ চাষীরা মাঠ ছেড়েই উঠে যাবেন। এতে ধ্বংস হবে দেশীয় লবণ শিল্প।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ লবণ চাষী সমিতির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, উজানটিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক মেম্বার সিরাজুল মোস্তফা, লবণচাষী শুয়াইবুল ইসলাম সবুজসহ সংশ্লিষ্টরা বক্তব্য দেন।

তারা জানান, দেশে প্রতিবছরের চাহিদা মিটিয়ে আরও প্রচুর পরিমাণ লবণ মজুুদ থাকলেও একটি অসাধু সিন্ডিকেট লবণের কৃত্রিম মূল্য বৃদ্ধি করে বাজেটে প্রভাব ফেলার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিলেন। যার কারণে গত ২১ জুন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল সভার (জুম মিটিং) আয়োজন করে ভোক্তা, লবণ চাষী ও ব্যবসায়ীদের মতামত নেয়া হয়।

ওই সভায় বিসিক সূত্রে জানানো হয়, দেশে ২০২১ লবণের চাহিদা ১৯ লাখ ৪৩ হাজার মেট্রিক টন। আর দেশে ২০২১ সালে লবণ উৎপাদন হয় ১৬ লাখ ৫১ হাজার মেট্রিক টন। এছাড়াও ২০২০ সালে ৩ লাখ ৪৮ লাখ মেট্রিক টন লবণ উদ্বৃত্ত রয়েছে। বর্তমানে ১৯ লাখ ৯৯ হাজার মেট্রিক টন মজুদ আছে, যা ২০২১ সালের চাহিদা পুরণ করে আরও ৫১ হাজার মেট্রিক টন লবণ উদ্বৃত্ত রয়েছে। ওই সভায় এসব তথ্য উঠে আসলে অসাধু ব্যবসায়ীদের সেই চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র নস্যাৎ হয়ে যায়।

লবণ চাসীদের বক্তব্য হলো- এখন যখন দেশীয় লবণ চাষীরা যখন আগামি মৌসুমের উৎপাদনের জন্য মাঠে নামতে শুরু করেছেন, ঠিক ওই সময়ে ‘লবণ মিল মালিক সমিতি’ নামে অসাধু একটি সিন্ডিকেট দেশে লবণের সংকট সৃষ্টি হতে পারে- এমন ভুল তথ্য দিয়ে আবারও বিদেশি লবণ আমদানির চক্রান্ত শুরু করেছেন। যদিও এদের সাথে লবণ কেনার কখনও সম্পর্ক ছিল না। বরং সরকারের কাছ থেকে বিদেশী লবণ আমদানির পারমিট নিয়ে সেই পারমিট কালো বাজারে বিক্রি করে মুনাফা লাভের চেষ্টায় আছেন।

সরকার বিদেশী লবণের উপর কর আরোপ ও অসাধু ব্যবসায়ীদের কৃত্রিম দাম বৃদ্ধির অপচেষ্টা বন্ধ করে দেয়ার পর যখন লবণ চাষী ও ব্যবসায়ীরা আশায় বুক বেঁধে আগামি মৌসুমের জন্য লবণ উৎপাদনে মাঠে মেমে পড়ছেন। তখন আবারও ওই চক্র নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করেছেন।

ইতোমধ্যে কুতুবদিয়া, রাজাখালী, বাঁশখালী, পেকুয়া ও টেকনাফের কিছু কিছু এলাকায় লবণ চাষীরা লবণ উৎপাদন শুরু করে দিয়েছেন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে চলতি বছরের মতো আগামি মৌসুমেও চাহিদার চেয়ে বেশি লবণ উৎপাদন করতে পারবেন চাষীরা। এমনকি আগামি ডিসেম্বর মাসের প্রথম দিকে নতুন উৎপাদিত লবণ বিক্রিও করতে পারবেন।

কিন্তু ওই অসাধু চক্রটি সরকার ও প্রশাসনকে বিভ্রান্ত করতে চাইছে যে, আগামি ডিসেম্বরের মধ্যেই লবণের সংকট তৈরি হবে দেশে! তাদের এই মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্যের ভিত্তিতে যদি সরকার বিদেশী লবণ আমদানির অনুমতি দেয় দেশীয় লবণ শিল্পই ধ্বংস হয়ে যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category